রোবট নয়, মানুষের ভয় মানুষ: স্টিফেন হকিং

টুডে সংবাদ ডেস্ক :

যন্ত্র নয়, মানুষের লোভই মানবসভ্যতার ভয়ের কারণ বলে মত কিংবদন্তি ব্রিটিশ বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিংয়ের। বিশ্বজুড়ে যন্ত্রসভ্যতার আগ্রাসনে মানবসভ্যতা কতটা সংকটে, কতখানি প্রভাবিত হতে চলেছে বিশ্বের অর্থনীতি- এ প্রসঙ্গেই ওই মন্তব্য করেন তিনি।

সভ্যতা যত এগোচ্ছে, মানুষের সমস্ত কাজে ভাগ বসাচ্ছে যন্ত্র। যন্ত্রের এই সুবিধা মানবসভ্যতার কাছে যেমন আশীর্বাদ, তেমনই অভিশাপও। একদিকে যান্ত্রিক সুবিধা যেমন মানুষকে দিয়েছে কাঙ্ক্ষিত গতি, তেমনই কমিয়ে দিয়েছে মানুষের মূল্যও কারণ বহু মানুষের কাজ একা যন্ত্র করে দিতে পারে। এ সংকট আজকের নয়। মানুষ এ সমস্যা মাথায় রেখেই যন্ত্রসভ্যতাকে আহ্বান জানিয়েছে।

কিন্তু প্রশ্ন হলো যন্ত্রসভ্যতার এই আগ্রাসন সারা বিশ্বের অর্থনীতিতে কী প্রভাব ফেলবে? রোবটের হাতে চলে যাওয়া বিশ্বে মানুষের অবস্থানই বা কোথায় হবে? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়েই কিংবদন্তি বিজ্ঞানী অঙ্গুলিনির্দেশ মানুষেরই প্রবৃত্তির দিকে। হকিংয়ের মতে, যন্ত্র একসঙ্গে বেশী পরিমাণে দ্রব্য উৎপাদন করতে পারে। কিন্তু প্রশ্ন হলো সেই সম্পদের বণ্টন কীভাবে হচ্ছে? যদি সমভাবে বণ্টিত হয় তাহলে পৃথিবীর প্রত্যেক মানুষই যন্ত্রসভ্যতার আশীর্বাদ নিয়ে সুবিধার জীবন যাপন করতে সমর্থ হবেন। কিন্তু যদি বণ্টনের সর্ষের ভিতরেই ভূত থাকে তবে দুনিয়া জুড়ে অসাম্য বাড়বে বই কমবে না। অর্থনীতি প্রভাবিত হবে এর উপর ভিত্তি করেই। এ বিজ্ঞানীর মতে, এখনো পর্যন্ত যা দেখা যাচ্ছে তাতে দ্বিতীয়টির সম্ভাবনা ও বিস্তারই বেশী।

আধুনিক সমাজব্যবস্থা নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে এই যন্ত্রমালিকদের হাতে। এই উৎপাদন ব্যবস্থায় বুর্জোয়া তারাই।
ফরাসি অর্থনীতিবিদ থমাস পিকেটির মতে, ‌’এই ব্যবস্থায় পুঁজির মূল্যই বাড়বে। প্রকৃত অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির আবস্থান তার থেকে অনেকটা দূরেই। ধনীর সম্পত্তি ক্রমবর্ধমান হবে, শ্রমজীবি মানুষ কোনোভাবেই তা ছুঁতে পারবেন না। এ তো আছেই, এর উপর বিজ্ঞানী হকিং মানুষের যে প্রবৃত্তিকে অর্থনীতির প্রভাবক হিসেবে তুলে এনেছেন তা অবশ্য আরও মূলগত দিকে আমাদের দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। মানুষের লোভ, আসাম্যে প্রতি মানুষের আকষর্ণ যদি না কমে, তবে শ্রমজীবী সম্প্রদায় কোনোদিনই মূল্য পাবেন না। অর্থাৎ অর্থনৈতিক অবস্থানের ভিত্তিতে শ্রেণীবিভেদ আরো বাড়তে থাকবে। তাই যন্ত্র নয়, বরং মানবসভ্যতার ভয়ের কারণ হিসেবে মানুষের দিকেই আঙুল তুলেছেন কিংবদন্তি বিজ্ঞানী।

(টুডে সংবাদ/উদয়া)