আসলামের সঙ্গে কথা হয়েছে: ইসরায়েলি সাফাদি

টুডে সংবাদ ডেস্ক : বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরীর সঙ্গে দেখা হয়েছিল এবং কথাও হয়েছিলে বলে স্বীকার করেছেন ইসরায়েলি রাজনীতিক মেনদি এন সাফাদি। তবে তাদের মধ্যে কোনও গোপন বিষয়ে কথা হয়নি বলে দাবি করেছেন তিনি।

ইসরায়েল থেকে সাফাদি টেলিফোনে বিবিসিকে বলেছেন, ‘বাংলাদেশের পরিস্থিতি, সেখানে সংখ্যালঘুদের অবস্থা এগুলো সবাই জানেন – আমরা দুজনে সে সব নিয়েই কথা বলেছি, তাও সেটা একটা প্রকাশ্য অনুষ্ঠানে। আমরা বাংলাদেশে সামরিক অভ্যুত্থানের পরিকল্পনা করছিলাম বা সরকারের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছিলাম এর চেয়ে হাস্যকর কিছু হতেই পারে না।’

যুক্তি হিসেবে তিনি বলেন, সরকার পতনের চক্রান্ত একটা প্রকাশ্য অনুষ্ঠানে করা হচ্ছে – তারপর আবার চক্রান্তকারীরা হাসিমুখে তাদের ছবি ফেসবুকে পোস্ট করেছেন, এ জিনিস কোথাও আবার হয় না কি?

সাফাদি সম্প্রতি ভারতের আগ্রায় একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসেন। সেখানে আসলাম চৌধুরী ও সাফাদির ছবি নিয়েই প্রথম বাংলাদেশি গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। ওই অনুষ্ঠানে বেশ কয়েকটি ছবি নিজের ফেসবুক পাতায় পোস্ট করেন সাফাদি। আর এসব ছবির উপর ভিত্তি করেই মূলত বিএনপি নেতার সঙ্গে ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের গোপন বৈঠকের খবর প্রকাশ করা হয়।

যদিও সাফাদি ইসরায়েলের ক্ষমতাসী লিকুদ পার্টির একজন প্রভাবশালী নেতা এবং একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের প্রধান। তাকে মোসাদের গোয়েন্দা হিসেবে গণমাধ্যমে উল্লেখ করায় অসন্তোষও প্রকাশ করেছেন।

আগ্রার ওই অনুষ্ঠানে তাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল ভারতে ক্ষমতাসীন দল বিজেপির যুব শাখা।

সাফাদি বলেন, প্রতিবেশী দেশের একটি রাজনৈতিক দলের নেতা হিসেবে আসলাম চৌধুরীও সেখানে আমন্ত্রিত ছিলেন। দু’জনের আগে থেকে কোনও পরিচয়ও ছিল না – একই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত দুই অতিথি হিসেবে তাদের মধ্যে স্বাভাবিক আলাপ হয়েছিল মাত্র।

তিনি বলেন, আসলাম চৌধুরীকে আমার সঙ্গে কথা বলার জন্য গ্রেফতার করা হয়েছে এটা আমি বিশ্বাস করি না। উনি কি কাউকে হত্যা করেছেন? উনি শুধু ভারতে এসে একজন ইসরায়েলির সঙ্গে কথা বলেছেন। আসলাম তার দেশে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন নিয়ে সরব হয়েছেন বলেই তাকে হেনস্থা করা হচ্ছে বলে সাফদির ধারণা।

বাংলাদেশের গণমাধ্যমে তাকে গোয়েন্দা হিসেবে উল্লেখ করার বিষয়ে সাফাদি বলেন, ‘আমাকে এমন একজন গুপ্তচর দেখান যিনি ঘণ্টায় ঘণ্টায় তার গতিবিধি ফেসবুকে পোস্ট করেন, সেমিনারে বক্তৃতা দিয়ে বেড়ান – সংবাদপত্রে সাক্ষাৎকার দিয়ে বেড়ান। এর পরও কেউ আমাকে যদি গুপ্তচর মনে করেন তাহলে আমার আর কিছু বলার নেই।’

তিনি বলেন, বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের নির্যাতনের বিষয়টি আমাকে বিচলিত করে। আমি সারা পৃথিবীতেই সংখ্যালঘুদের অধিকার নিয়ে কথা বলি, তাদের জন্য লড়ি– বাংলাদেশও তার কোনও ব্যতিক্রম নয়।

উল্লেখ্য, সরকার উৎখাতে ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে বৈঠক করার অভিযোগ বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে গতকাল রোববার ঢাকা থেকে আটক করে পুলিশ। সোমবার তার সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বিএনপি অবশ্য বলছে, এটা সরকারেরই ষড়যন্ত্র। আসলাম বলছেন, সেই অনুষ্ঠানে অন্যদের মতো তিনিও গিয়েছিলেন।

(টুডে সংবাদ/তা.সু.পি)

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে www.todaysangbad.com