ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে গরু চুরি

টুডে সংবাদ.কম : ঈদকে সামনে রেখে চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলার এলাকায় গরু চোরদের তৎপরতা বেড়েছে। গত এক মাসের মধ্য মিরসরাই, রাউজান, হাটহাজারী ও লোহাগড়াসহ বিভিন্ন উপজেলায় প্রায় অর্ধশত গরু চুরি হয়েছে। গরু চুরি বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন কৃষক ও খামারিরা।

লোহাগাড়া থানার ওসি সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, গরু চুরি রোধ করতে কমিউনিটি পুলিশকে কাজে লাগানো হচ্ছে। পাশাপাশি পুলিশের টহল বাড়ানো হয়েছে। গরু চুরি সাম্প্রতিক সময়ে কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। চোরদের ধরতে পুলিশও কাজ করে যাচ্ছে।

খামারিরা জানান, কুরবানি ঈদকে সামনে রেখে চোরের দল প্রায়ই রাতে কোনও না কোনও বাড়িতে হানা দিচ্ছে। এক্ষেত্রে গরু চুরি করতে এসে এলাকাবাসীর হাতে চোরদের গণপিটুনি খাওয়ার মতো ঘটনা ঘটেছে।

মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইরুল ইসলাম বলেন, ১৩ জুলাই ভোরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মিরসরাইয়ে পিকআপে তল্লাশি চালিয়ে পাঁচটি চোরাই গরুসহ দুইজনকে আটক করে পুলিশ। পিকআপটিও জব্দ করা হয়। এই ঘটনার পর মিরসরাইয়ে আর এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি বলেও জানিয়েছেন ওসি।

এ মাসের শুরুর দিকে হাটহাজারী উপজেলার মেখল ইউনিয়নের দক্ষিণ মেখল এলাকার দশরথ উকিলের বাড়ি থেকে চারটি গরু নিয়ে গেছে চোরের দল। গরুর মালিক রঞ্জন দাশ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, চারটি গরু চুরি গেছে। অনেক কষ্ট করে গরুগুলো লালন-পালন করে আসছিলাম। এ ব্যাপারে হাটহাজারী থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এছাড়া জানা যায় সম্প্রতি সময়ে লোহাগাড়া উপজেলার আমিরাবাদে চারটি, চুনতি ইউনিয়নের হিন্দুপাড়া থেকে চারটিসহ ইউনিয়নের রোসাইঙ্গাপাড়া, কুমুদিয়াপাড়া, বনপুকুর এলাকা ও নলবনিয়া এলাকা হতে মোট ১৩টি গরু চুরি হয়েছে।

লোহাগাড়া উপজেলার চুনতি ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সাজিব হোসেন জানান, কুরবানির ঈদকে সামনে রেখে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গরু চোরদের তৎপরতা বেড়েছে। কয়েকদিন আগে জনগণ তিনজন চোরকে ধরে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে।

টুডে সংবাদ/ইমানুর রহমান