স্বাধীনতা দিবসেও উত্তোলন হয়নি জাতীয় পতাকা,নতুন প্রজন্মকে কী শেখালেন প্রধান শিক্ষক ?

ইমানুর রহমান,নিজস্ব প্রতিবেদক : সৈয়দপুরের পার্শ্ববর্তী সোনাপুকুর উচ্চ বিদ্যালয়ে গত ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস পালিত হয়নি। ওইদিন প্রধান শিক্ষক স্কুল বন্ধ রেখে স্বাধীনতা দিবসের সকলপ্রকার কার্যক্রম নস্যাৎ করে দেন।

এমন অভিযোগ তুলেছেন বেলাইচন্ডি ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক রুবেল ইসলাম রাব্বি। এ ব্যাপারে তারা প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবি করে বিদ্যালয় চত্তরে গতকাল ২৭ মার্চ বিক্ষোভ মিছিল করে। একই অভিযোগে শামিল হন বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শফিকুল ইসলাম দুলাল।

তিনি জানান, মহান স্বাধীনতা দিবসে প্রধান শিক্ষক মো. লতিফুল কবীর বিদ্যালয় বন্ধ রেখেছেন। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে ঘোষণা ছিল একই সময়ে জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা দিবস পালন করা হবে। তাছাড়া নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যার ইতিহাস শোনাতে হবে। কিন্তু ওই প্রধান শিক্ষক স্কুল বন্ধ রাখার কারণে ওইদিন সময়মত বিদ্যালয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়নি। সেই সাথে স্বাধীনতা দিবসের সকল প্রকার কার্যক্রম বন্ধ থাকে। এ খবর জানতে পেরে সাংবাদিকরা ওই বিদ্যালয়ে গেলে প্রধান শিক্ষককে পাওয়া যায়নি। স্কুল থেকে বলা হচ্ছে প্রধান শিক্ষক জরুরি কাজে দিনাজপুরে গেছেন। স্বাধীনতা দিবস কেন প্রধান শিক্ষক পালন করেননি এ নিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বিভক্ত হয়ে আলোচনা সমালোচনা করছেন। বিদ্যালয়ের সভাপতি ওইসকল কর্মসূচির ব্যাপারে স্কুলে গিয়ে প্রধান শিক্ষককে না পেয়ে অন্যান্য শিক্ষকদের নিয়ে বৈঠক করেন।

ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি আমিনুল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, প্রতিবেশি আব্দুল হাকিম, বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষিকারা। তাদের দাবি ওই প্রধান শিক্ষক হয়তো স্বাধীনতা বিরোধী কোন দলের সাথে জড়িত রয়েছে। তা না হলে মহান স্বাধীনতা দিবস পালন না করে তিনি কেন অন্যত্র থাকলেন। বর্তমানে ওই বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটি ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ওই প্রধান শিক্ষকের শাস্তিসহ অপসারণ দাবি তুলেছে।

টুডে সংবাদ/উদয়া