টঙ্গীতে ব্যবসায়ী মালিক সমিতির ৫ম বাৎসরিক ওয়াজ মাহফিল

মোঃ মুজাহিদুল ইসলাম : গত ৯ই মার্চ ২০১৮ ইং রোজ শুক্রবার বাদ আছর গাজীপুর মহানগর টঙ্গী বাজার আনারকলি রোডে টঙ্গী পুরাতন লৌহ ব্যবসায়ী মালিক সমিতির উদ্দ্যোগে ৫ম বাৎসরিক ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব জনাব কাজী জামাল উদ্দিন চিশ্তী (সভাপতি, টঙ্গী পুরাতন লৌহ ব্যবসায়ী মালিক সমিতি)। মুয়াল্লিমুল হুজ্জাস মাওলানা কেরামত আলী’র পরিচালনা ও উপস্থাপনায় প্রধান অতিথি আলহাজ্ব মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল এম.পি (সভাপতি, যুব ও ক্রীড় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি)’র উপস্থিত থাকার কথা কিন্তু তিনি রাষ্ট্রীয় কাজে ব্যস্ত থাকার কারণে উপস্থিত না থাকতে পেরে গভীর দুঃখ প্রকাশ করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন আলোরণ সৃষ্টিকারী বক্তা আলহাজ্ব হাফেজ হযরত মুফতি কেফায়েতুল্লাহ্ আযহারী (মহাপরিচালক, আল মানহাল মডেল কওমী মাদ্রাসা, উত্তরা, ঢাকা)। অনুষ্ঠানে উদ্ভোধন হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব আলহাজ্ব এ্যাড. মোঃ আজমত উল্লাহ খান (সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, গাজীপুর মহানগর ও সাবেক মেয়র, টঙ্গী পৌরসভা)। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আলহাজ্ব কাজী মোজাম্মেল হক (সাবেক সংসদ সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার, গাজীপুর জেলা)। জনাব আলহাজ্ব আজহার উদ্দিন (সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ ও সাবেক কাউন্সিলর, ৫৭ নং ওয়ার্ড, টঙ্গী পৌরসভা)। আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন সরকার (কাউন্সিলর, ৫৭ নং ওয়ার্ড, গাজীপুর মহানগর)। জনাব মোঃ নজরুল ইসলাম (সাবেক কাউন্সিলর, ৫৭ নং ওয়ার্ড, টঙ্গী পৌরসভা)। জনাব এস এম রুহুল আমিন মনি সরকার (সাধারণ সম্পাদক, টঙ্গী থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগ, গাজীপুর মহানগর)। বিশেষ বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ মুফাচ্ছেরে কোরআন আলহাজ্ব মাওলানা ইলিয়াস ইব্রাহিম বিক্রমপুরী (খতিব, নিউ এ্যালিফ্যান্ট রোড, গুলবাগ জামে মসজিদ, ঢাকা)। এছাড়াও অনুষ্ঠানে ওয়াজ করেন আলহাজ্ব মুফ্তি ইয়াকুব, হযরত মাওলানা জাকারিয়া সাহেব, আলহাজ্ব মাওলানা রিয়াদুল ইসলাম, আলহাজ্ব মাওলানা আবু বক্কর সিদ্দিক, আলহাজ্ব মাওলানা আব্দুস সালাম, আলহাজ্ব মাওলানা মাস্উদুর রহমান, হাজী মাওলানা হানিফ সরকার ও আলহাজ্ব মাওলানা আব্দুল হালিদ প্রমুখ। এছাড়াও অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোঃ মফিজুল ইসলাম মফিজ (কাউন্সিলর পদপ্রার্থী, ৫৬ নং ওয়ার্ড, গাজীপুর মহানগর) সহ অত্র এলাকার হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ নারী ও পুরুষ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে নসিহত ও দো’আ পরিচালনা করেন সাইখুল হাদিস আল্লামা সোলাইমান নোমানী সাহেব (খতিব, টঙ্গী বাজার জামে মসজিদ)। অনুষ্ঠানে সার্বিক তত্ত্বাবধান করেন জনাব হাজী মোঃ জহিরুল ইসলাম শিকদার (উপদেষ্টা, টঙ্গী পুরাতন লৌহ ব্যবসায়ী মালিক সমিতি)। অনুষ্ঠানে সার্বিক সহযোগীতা করেন জনাব মোঃ আব্দুস সালাম খান (সাধারণ সম্পাদক, ফয়যুল উলুম কওমী মাদ্রাসা, টঙ্গী ভরান)। অনুষ্ঠানে নিবেদক ছিলেন জনাব মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক (সাধারণ সম্পাদক, টঙ্গী পুরাতন লৌহ ব্যবসায়ী মালিক সমিতি), জনাব মোঃ মনির হোসেন (যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, টঙ্গী পুরাতন লৌহ ব্যবসায়ী মালিক সমিতি) ও জনাব মোঃ জাকির হোসেন (সাংগঠনিক সম্পাদক, টঙ্গী পুরাতন লৌহ ব্যবসায়ী মালিক সমিতি) সহ সমিতির সকল সদস্যবৃন্দ। অনুষ্ঠান প্রচারে ছিলেন জনাব মোঃ মনির হোসেন (প্রচার সম্পাদক) ও জনাব মোঃ নুরুল ইসলাম (সহ-প্রচার সম্পাদক, টঙ্গী পুরাতন লৌহ ব্যবসায়ী মালিক সমিতি)। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছান্তে ছিলেন জনাব হাফেজ সাইদুল ইসলাম শিকদার (ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক, টঙ্গী পুরাতন লৌহ ব্যবসায়ী মালিক সমিতি)।

ইসলামপুর থানার এস আই মোঃ মোশারফ হোসেনের অমানসিক নির্যাতনের শিকার নিরীহ এক যুবক ও তার স্ত্রী। যুবক হাসপাতালে………..

স্টাফ রিপোর্টার
গত ৬ই মার্চ ২০১৮ ইং রোজ মঙ্গলবার রাত্র আনুমানিক ১২.৩০ মিনিটের সময় জামালপুর জেলার ইসলামপুর থানার এস আই মোঃ মোশারফ হোসেন ও হোসাইন সহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঝাড়তলা বাজার (জামতলা)’য় আসামী ধরতে যায়। তখন সুজন নামের এক যুবককে জোরপূর্বক ঘর থেকে তুলে নেয়ার সময় যুবকের স্ত্রী বাঁধা দিলে এস আই মোশারফ ও তার সঙ্গীয় ফোর্স ঐ যুবক ও তার স্ত্রী’র শরীরের বিভিন্ন যায়গায় এলোপাথারী মারতে থাকে। স্ত্রী’কে মেরে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায় থানায়। থানায় নিয়ে রাইফেলের বাটদিয়ে যুবকের ডানপায়ে আঘাত করে পায়ের একটি আঙ্গুল ভেঙ্গে ফেলে এবং হাটুর হাড় ফেটে যায়। ঐ যুবকের আত্ম চিৎকারে থানার বাসাত ভারী হয়ে উঠে। মারতে মারতে যুবকের একটি কানের পর্দা ফেটে যায় এবং সে অচেতন হয়ে পরে যায়। পরে ঘটনা জানাজানি হলে পুলিশ জানতে পারে ঐ যুবক কোন আসামী না। সে একজন নিরীহ সাধারণ মানুষ। পরে পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয়। বর্তমানে ঐ যুবক জামালপুর হাসপাতালের পুরুষ ওয়ার্ডের ১৮ নং বেড-এ চিকিৎসাধীন রয়েছে। এই কথাগুলো বলতে বলতে কান্নায় ভেঙ্গে পরে ঐ যুবকের স্ত্রী রনি। এ বিষয়ে ইসলামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিনুজ্জামান শাহিন এর সহিত মোবাইলে কথা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং বলেন আসামীর বাবার নাম আর ঐ যুবকের বাবার নাম মিল থাকায় তাকে ভুল করে ধরে আনা হয়। আর ধরে আনার সময় একটু ধস্তাধস্তি হয়। তাতে ঐ যুবক একটু ব্যাথা পেয়েছে। আমরা তার খোঁজখবর রাখছি। ঐ যুবকের পরিচয় পাওয়া যায়। তার নাম মোঃ সুজন (৩৮), পিতা- মৃত আবুল কালাম আজাদ, সাং- ঝাড়তলা বাজার (জামতলা), থানা- ইসলামপুর, জেলা- জামালপুর। এলাকার একাধিক ব্যক্তির নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানায় যে, পুলিশ এতবড় ভুল করলো কিভাবে ? যাচাই বাছাই না করে একজন নিরপরাধ নিরীহ লোককে ধরে নিয়ে অমানুষিক নির্যাতন করে। ঐ অফিসারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে সে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠতে পারে। ঐ অফিসারের বিরুদ্ধ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জোর দাবী জানান এলাকাবাসী। আরও তথ্য নিয়ে আসছি আমরা আগামীতে……..