সালিশ : শ্লীলতাহানীর শিকার ছাত্রীকে হোস্টেল থেকে বিতাড়ণ

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল : ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে শ্লীলতাহানী ঘটানো বখাটের কোন বিচার না করে উল্টো প্রহসনের সালিশে স্কুল ছাত্রীকে হোস্টেল থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। এনিয়ে সর্বত্র তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাটি জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার ঐচারমাঠ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের।
স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ওই বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়ানুষ্ঠানের উদ্বোধনী দিন বুধবার বিকেলে স্থানীয় প্রভাবশালী ঝন্টু বালার ভাগ্নে ও জুরান বেপারীর পুত্র আকাশ বেপারী বিদ্যালয়ের আবাসিক হোস্টেলের নবম শ্রেণীর ছাত্রী লিপিকা হালদারকে বিদ্যালয়ের নির্জন একটি কক্ষে একাকী পেয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এসময় ওই ছাত্রীর চিৎকারে বখাটে আকাশ ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে শ্লীলতাহানী ঘটিয়ে দ্রুত সটকে পরে। পাশ্ববর্তী উজিরপুর উপজেলার বাসিন্দা ওই স্কুল ছাত্রী বিষয়টি তাৎক্ষনিকভাবে হোস্টেল সুপার সুপ্রিয়া মালাকারকে অবহিত করেন। এনিয়ে বৃহস্পতিবার রাতে হোস্টেলের সুপারসহ স্থানীয় ঝন্টু বালা, জগদীশ হালদার, দিলীপ হালদার, প্রকাশ বাড়ৈ, প্রণব বৈদ্যর উপস্থিতিতে স্কুলে একটি প্রহসনের সালিশ বৈঠকে বসে। বৈঠক চলাকালীন সময় প্রভাবশালী ঝন্টু বালা তার ভাগ্নে অভিযুক্ত আকাশের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নিয়েই প্রভাব খাটিয়ে তাকে নিয়ে চলে যায়। পরবর্তীতে উল্টো শ্লীলতাহানীর শিকার ছাত্রীর অভিভাবক ডেকে তাদের কাছ থেকে লিখিত রেখে ছাত্রীকে হোস্টেল থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয়। এ ঘটনায় হোস্টেল ও স্কুলের শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে ঐচারমাঠ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক প্রনব বৈদ্য ছাত্রীকে হোস্টেল থেকে তাড়িয়ে দেয়ার ব্যাপারে কোন সদূত্তর দিতে পারেননি।