ক্ষমতা ধরে রাখার লড়াই, ভারতের পাশে শুধু শ্রীলঙ্কা!

স্পোর্টস ডেস্ক : প্রত্যাশিত আয় যদি ৩৪ শতাংশ কমে যায়, কারও পক্ষে মেনে নেওয়া কঠিন। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) তাই সর্বশক্তি দিয়ে চেষ্টা করে যাচ্ছে নতুন প্রস্তাবিত আর্থিক মডেল ঠেকানোর। অন্তত দুটি ভোট নিজেদের পাশে থাকবে বলে প্রত্যাশা করেছিল ভারত। জিম্বাবুয়ে এরই মধ্যে সরে গেছে বলে মনে হচ্ছে। এখন ভারতের পাশে আছে কেবল শ্রীলঙ্কা।

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) সভাপতি থিলাঙ্গা সুমাথিপালা দাবি করেছেন, নতুন প্রস্তাবিত মডেলটির ব্যাপারে বিস্তারিত বোঝার সময় তাঁরা পাননি। মাত্রই গত ১০ জানুয়ারিতে এ ব্যাপারে কাগজপত্র পাঠানো হয়েছিল এসএলসির কাছে। তিনি এও দাবি করেছেন, নতুন মডেলটির ব্যাপারে আইসিসির এই সভায় শুধু আলোচনা হবে বলে ভেবেছিলেন। এখানে যে সিদ্ধান্তও নেওয়া হবে, তা জানতেন না।
তা ছাড়া একই সঙ্গে প্রশাসনিক ও আর্থিক বিষয়ক আলোচনা বিভ্রান্তি বাড়াবে বলে মনে করেন তিনি। প্রস্তাবিত মডেলটি আরও বিশদ ব্যাখ্যা ও পরিষ্কার ধারণার দাবি রাখে। এ কারণে এখনই এটা পাস করার পক্ষে ছিল না এসএলসি।
শ্রীলঙ্কার অবস্থান এক দিক দিয়ে বিস্ময়কর। তিন মোড়ল নীতি থেকে সরে এলে বাকি ছোট বোর্ডগুলোর আর্থিক আয়ের অঙ্ক বিপুল পরিমাণ বাড়বে। এসএলসিও আইসিসি থেকে আগের তুলনায় অনেক বেশি টাকা পাবে। তবু তারা নতুন মডেলের বিপক্ষে অবস্থান কেন নিল? কারণটা অনুমান করে নেওয়ায় যায়। বিসিসিআই এসএলসিকে পাশে রাখতে চাইছে।
এ বছরের শেষের দিকে ভারত শ্রীলঙ্কায় পূর্ণ সফরে যাবে। যে সফর এসএলসির জন্য ভীষণ জরুরি। সুমাথিপালা আগামী বছর ফেব্রুয়ারিতে ভারতকে নিয়ে একটি ‘ইনডিপেনডেন্স ট্রফি’র আয়োজন করতে চান। এর আগে লঙ্কান বোর্ডে থাকার সময় ১৯৯৮ সালে তিনি ভারত ও নিউজিল্যান্ডকে নিয়ে এমনই একটি ত্রিদেশীয় সিরিজ করেছিলেন, শ্রীলঙ্কার স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে। ৭০ বছর পূর্তিতেও আরও একটি টুর্নামেন্ট আয়োজনের ইচ্ছা আছে সুমাথিপালার। ভারতকে তাঁরও দরকার। সূত্র: ক্রিকইনফো।

(টুডে সংবাদ/তা.সু.পি)

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে www.todaysangbad.com ভিজিট করুন এবং

লেখাটি ভালো লাগলে লাইখ দিন এবং  শেয়ার করুন