আর হবে না হার্ট অ্যাটাক!

28

স্বাস্থ্য বিষয়ক ডেস্ক : জার্মান হার্ট ফাউন্ডেশনের হিসাব অনুযায়ী, বিশ্বজুড়ে প্রতি বছর তিন লক্ষাধিক মানুষ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। বায়ুদূষণ, খাদ্যাভ্যাস থেকে শুরু করে নানা কারণে দিন দিন এই সংখ্যা বেড়েই চলছে।

হৃদরোগের এই ঝুঁকি প্রাকৃতিক উপায়ে তো বটেই, একইসঙ্গে যান্ত্রিক উপায়েও কীভাবে কমানো যায়, এ বিষয়ে অনেক দিন ধরে বিজ্ঞানীরা গবেষণা চালিয়ে আসছেন। এরই অংশ হিসেবে থ্রিডি প্রিন্টার ব্যবহার করে এবার মার্কিন বিজ্ঞানীরা হৃদযন্ত্রের জন্য তৈরি করেছেন এমন এক ইলেকট্রনিক আবরণ, যা নাকি মানুষকে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি থেকে চিরতরে মুক্তি দেবে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, অতি নমনীয় ইলাস্টিক দিয়ে তৈরি এই আবরণটির সঙ্গে যুক্ত রয়েছে অসংখ্য সূক্ষ্ম ইলেকট্রিকের তার ও চিপ, যা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করবে হৃদযন্ত্রের কাজ। এছাড়া হৃদযন্ত্রের স্পন্দন যেন সব সময় স্বাভাবিক ও অব্যাহত থাকে, তার প্রতিও দৃষ্টি রাখবে এটি। হঠাৎ আঘাত বা কোনো কারণে হৃদযন্ত্রের স্পন্দন বাধাগ্রস্ত হলে এই চিপ স্বয়ংক্রিয়ভাবেই প্রয়োজনীয় মাত্রায় বৈদ্যুতিক শক দিয়ে তাকে স্বাভাবিক করে তুলবে।

২০১৪ সালে প্রথম এই আবিষ্কারটির কথা যৌথভাবে জানান দেন যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয়স ও ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা। তবে তখনও এই ইলাস্টিক আবরণ তারা কোনো প্রাণীর ওপর প্রয়োগ করতে পারেননি।

সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা এটি খরগোশের হৃৎপিণ্ডে বসিয়ে চমৎকার সাফল্য পেয়েছেন। এ সাফল্যের পর তারা বলছেন, আশা করা হচ্ছে, ১০ থেকে ১২ বছরের মধ্যে এই চিপ মানুষের ব্যবহারোপযোগী করে বাজারজাত করা সম্ভব হবে, যা হবে পেসমেকারের চেয়ে অনেক বেশি এগিয়ে থাকা প্রযুক্তি। আর এটি বাস্তব হলে বাঁচানো সম্ভব হবে হৃদরোগে আক্রান্ত অনেক রোগীকে।

(টুডে সংবাদ/মেহেদী)

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে www.todaysangbad.com