বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত নারীর নিউ ইয়র্কে বাসে ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা

masiul-alam

অনলাইন ডেস্ক : নিউ ইয়র্ক সিটি বাসে উঠে যে ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা হলো তা লেখার জন্য ফেসবুককেই বেছে নিয়েছিলেন ফারিহা নিজাম। বৃহষ্পতিবার মানে ডোনাল্ড ট্রাম্প আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হওয়ার ঠিক ২ দিন পরের ঘটনা। ফারিহা ঐদিন সকালে বাসে করে ম্যানহাটন যাচ্ছিলেন। বাসের মধ্যে এক শেতাঙ্গ যুগল ছিল। অবাক ব্যাপার হলো, ঐ যুগল আকস্মিকভাবেই ফারিহাকে উদ্দেশ্য করে আক্রমণাত্মক আচরণ শুরু করলো। ঘটনাটি ফারিহার মুখ থেকেই শোনা যাক। ফারিহা লিখেছেন-

‘ঐ দু’জন আমাকে উদ্দেশ্য করে গালিগালাজ শুরু করলো। চিৎকার করে আমার হিজাব খুলে ফেলতে বলে। বলে, এখানে আর এসব করা যাবে না। আমি ভয় পেয়ে গেলাম এবং উদ্বিগ্ন হয়ে গেলাম। আমি কান্না সামলাতে পারলাম না। নিজের এতটা দূর্বলতা দেখে হতাশ হয়েছি, কিন্তু আমার তো আসলে কিছু করার ছিল না। আমি কেঁদেই যাচ্ছিলাম। কিন্তু তারা থামেনি। তারা অনর্গল আমাকে বকাঝকা করছে এবং বলছে, ‘মাথা থেকে বিরক্তিকর ঐ কাপড়ের টুকরো খুলে ফেলো’।’

বাসের অন্য যাত্রীরা এ সময় ঐ শেতাঙ্গ যাত্রীকে থামানোর চেষ্টা করে। ফারিহা নিজাম বলছেন-

‘ঐ মহিলা আরো রেগে গেলো এবং আমার কাছাকাছি চলে এলো। মনে হচ্ছিল, সে আমার হিজাব ধরে টেনে খুলে ফেলবে। আমি খুবই আতঙ্কিত হয়ে পড়ি এবং নিজেকে শান্ত রাখার চেষ্টা করছিলাম যাতে করে আমি সেখান থেকে বেরিয়ে আসতে পারি। আমি বাস থেকে নেমে পড়ি এবং পুরো রাস্তা কাঁদতে কাঁদতে হেঁটে বাসায় আসি।’

১৯ বছর বয়সী হান্টার কলেজের শিক্ষার্থী ফারিহা নিজাম বলেছেন, বাসের মধ্যে এই ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার পুরো সময়টাতে মেট্রোপলিটান ট্রান্সপোর্ট কর্তৃপক্ষ তাকে কোন সহযোগিতা করেনি। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে ‘নিউ ইয়র্ক ডেইলী নিউজে’র কাছে মন্তব্য করতে গিয়ে ফারিহা বলেছেন-

‘নির্বাচনের আগে আমি কখনোই এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হইনি।’

উল্লেখ্য, ফারিহা নাজিম একজন বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত আমেরিকান নাগরিক। তার পরিবারের একজন সদস্য জানিয়েছেন, ফারিহা নিজের পছন্দেই হিজাব পড়েন। এটা তার পারিবারিক নয় বরং তার ব্যক্তি পছন্দের বিষয়। ব্যক্তি স্বাধীনতার দেশ আমেরিকায় এমন পরিস্থিতিতে পড়তে হবে সেটা আগে কেউ কল্পনা পর্যন্ত করেনি।

তবে এই নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হবার সাথে সাথে অনেক প্রতিক্রিয়া দৃশ্যমান হতে শুরু করেছে। এসব ঘটনা তারই অংশ, যা আমেরিকায় অভিবাসী জনগোষ্ঠীকে আশঙ্কায় ফেলে দিচ্ছে। ‘সাউদার্ন পোভার্টি ল সেন্টার’ নামের একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান আমেরিকায় ‘হেট ক্রাইমে’র পরিসংখ্যান তুলে ধরে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, নির্বাচনের পর থেকে আমেরিকায় ২০১টি হয়রানি এবং হুমকির ঘটনা ঘটেছে। এসব হয়রানি এবং হুমকি-ধামকির শিকার হচ্ছে কালো থেকে শুরু করে ধর্মভীরু মানুষেরা, নারী থেকে শুরু করে সমকামীরা পর্যন্ত।

(টুডে সংবাদ/তমাল)প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে www.todaysangbad.com ভিজিট করুন, লাইক দিন এবং  শেয়ার করুন