আমাদের রিজার্ভের টাকা ফেরত দিতেই হবে : আইনমন্ত্রী

021%e2%80%a1

নিজস্ব প্রতিবেদক : আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে চুরি যাওয়া অর্থের বাকি টাকা ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনকে (আরসিবিসি) ফেরত দিতেই হবে। ফিলিপাইন ঘুরে এসে আজ বৃহস্পতিবার নিজ মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।
গত শনিবার মন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল ফিলিপাইনে যায়। গতকাল বুধবার রাতে আনিসুল হক দেশে ফেরেন।
কী পরিমাণ টাকা ফেরত আসবে—সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমার কথা ৬৬ মিলিয়নই আসবে। প্রথম কথা হচ্ছে, আমরা ফিলিপাইনে আইনি লড়াই অব্যাহত রেখে যাব। সরকারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করছি, তারা যদি টাকা আদায়ে অন্য কোনো পন্থা বের করে, সেখানেও আমরা সর্বাত্মক সহযোগিতা করব।’
আরসিবিসির সাম্প্রতিক বিবৃতির বিষয়ে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, দায় স্বীকারের পর যদি বলে, দায় স্বীকার করছি না। তাহলে সেটা গ্রহণযোগ্য নয়। তারা কেবল দায় স্বীকারই করেনি, দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর তার জন্য নির্ধারিত সাজা হিসেবে ২১ মিলিয়ন ইউএস ডলারের মধ্যে ১০ মিলিয়ন দিয়েছে। আরসিবিসি ভয় পাচ্ছে যে তাদের টাকাটা দিতে হবে। সেই জন্যই অনেক রকম গান তারা গাওয়া শুরু করেছে। এখানে বাংলাদেশ ব্যাংকের কে কী দোষ করেছে, এটার সঙ্গে সেটা সম্পৃক্ত নয়।

ফিলিপাইনের মন্ত্রিসভার দুই সদস্য ও সিনেটের সভাপতির সঙ্গে বৈঠক করার কথা জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, ফিলিপাইন ও বাংলাদেশের বন্ধুত্ব অত্যন্ত গাঢ়, সে কারণে এই টাকা ফেরত দিতে যত ধরনের সহযোগিতা করা প্রয়োজন, বাংলাদেশ সরকারকে তারা (সরকার) সেই সহযোগিতা করবে বলে কথায়, কাজে ও শারীরিক ভাষায় (বডি ল্যাঙ্গুয়েজে) বুঝিয়েছে। এ কথাও পরিষ্কারভাবে তারা বলেছে, বাংলাদেশের হয়ে এই অর্থ আদায়ের জন্য ফিলিপাইন সরকার ও সিনেট লড়ে যাবে।

আইনমন্ত্রী আরও বলেন, ওই টাকা আদায়ে ফিলিপাইন সরকার আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে। বাংলাদেশের হয়েই সেখানে ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। এটার আরেকটা কারণ হচ্ছে, এখানে ফিলিপাইনের ‘ক্রেডিবিলিটি’ ও তাদের ‘ফাইন্যান্সিয়াল ইনস্টিটিউশনের ক্রেডিবিলিটি’ জড়িত।

আইনমন্ত্রী বলেন, সিনেটের শুনানির কারণে আরসিবিসির দায় নিয়ে সেখানে আলোচনা হয়েছিল। সেই শুনানি শেষ হওয়ার আগেই ফিলিপাইনে নির্বাচন হয়। সেই শুনানি পুনরায় শুরু করতে সিনেট সভাপতির কাছে প্রস্তাব দিলে তিনি তাঁর কার্যালয়কে তাৎক্ষণিক নির্দেশনা দিয়েছেন। সিনেট সভাপতিকে উদ্ধৃত করে মন্ত্রী বলেন, তিনি অত্যন্ত পরিষ্কারভাবে বলেছেন, অন্যায়ভাবে কেউ লাভবান হোক, তাদের সরকার তা হতে দেবে না।

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা হওয়ার কথা থাকলেও সেখানকার একটি শহরে ‘মৌলবাদী সন্ত্রাসী দলের আক্রমণের’ কারণে প্রেসিডেন্ট ওই প্রদেশে চলে গেলে সেটা বাতিল হয়ে যায় বলে জানান আনিসুল হক। এ সময় সেখানকার অর্থমন্ত্রী, আইন প্রতিমন্ত্রীসহ বিভিন্ন জনের সঙ্গে সাক্ষাতের কথা উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের চুরি যাওয়া বাকি অর্থ ফেরত দেবে না রিজাল ব্যাংক। ব্যাংকটির পক্ষ থেকে গত মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের অবহেলার কারণেই তাদের রিজার্ভের অর্থ চুরি গেছে। উল্লেখ্য, এই ব্যাংকের মাধ্যমেই চুরি যাওয়া রিজার্ভের অর্থ বের করে নেওয়া হয়েছে।

(টুডে সংবাদ/উদয়া)

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে www.todaysangbad.com ভিজিট করুন, লাইক দিন এবং  শেয়ার করুন