উইসকনসিন অঙ্গরাজ্যে ভোট পুনর্গণনায় হিলারির সমর্থন

1q3

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিন অঙ্গরাজ্যে ভোট পুনর্গণনাকে সমর্থন জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক দলের পরাজিত প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। গত মঙ্গলবার তিনি এ সমর্থনের ঘোষণা দেন।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোট গণনা মেশিনের মাধ্যমে ভোটে কারচুপি হয়েছে—গ্রিন পার্টির এই অভিযোগের ভিত্তিতে উইসকনসিনের ৩০ লাখ ভোট পুনর্গণনা শুরু হয়েছে। অঙ্গরাজ্যের ডেন কাউন্টি সার্কিট আদালতের নথি অনুসারে, এই আদালতে হাতে ভোট পুনর্গণনার দাবি জানিয়ে গ্রিন পার্টির প্রার্থী জিল স্টেইনের করা মামলায় সমর্থন দিয়েছেন হিলারি। পেনসিলভানিয়া ও মিশিগানেও একই অভিযোগে ভোট পুনর্গণনার দাবি করেছে গ্রিন পার্টি। এসব অঙ্গরাজ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের বিজয়ী প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে হেরে গেছেন হিলারি।

ক্যাপিটাল টাইমস জানিয়েছে, মেডিসনের ডেন কাউন্টিতে সার্কিট আদালতে মঙ্গলবার স্থানীয় সময় রাতে স্টেইনের করা মামলার শুনানি হয়। এতে হিলারির পক্ষে অ্যাটর্নি জোশুয়া কল আদালতে বলেন, স্টেইনের মতো যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীও মনে করেন, স্বয়ংক্রিয় অপটিক্যাল স্ক্যানারের চেয়ে হাতে ভোট গণনা বেশি নির্ভরযোগ্য। কিন্তু উইসকনসিনের ৯০ শতাংশ কাউন্টিতেই ইলেকট্রনিক মেশিনের মাধ্যমে ভোট গণনা হয়েছে। এই অঙ্গরাজ্যে ম্যানুয়াল ভোট গণনার যে নির্দেশ জারি হয়েছে, তা হিলারি সমর্থন করেন।

এর আগে ভোট পুনর্গণনার দাবি ওঠার পর গত সপ্তাহে হিলারির প্রচার কমিটি জানিয়েছিল, এ প্রক্রিয়ায় তারা সহযোগিতা করবে।

মামলার বিবাদীপক্ষ উইসকনসিন কর্তৃপক্ষ আদালতকে জানায়, হাতে ভোট গণনা করতে গেলে প্রচুর সময় ব্যয় হয়ে যাবে এবং তা ১২ ডিসেম্বরের আগে শেষ করা সম্ভব হবে কি না, তা নিয়েও যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।

শুনানি শেষে স্টেইনের আবেদন খারিজ করে দেন ডেন কাউন্টি সার্কিট আদালতের বিচারক ভ্যালেরি বেইলি-রিন। সেই সঙ্গে হাতে, না মেশিনে ভোট পুনর্গণনা হবে, সে সিদ্ধান্ত উইসকনসিনের কাউন্টিগুলো নেবে বলেও রুল জারি করেন।

উইসকনসিনের অ্যাটর্নি জেনারেল ব্র্যাড স্কিমেল আদালতের এ রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন। তবে আদালতের এ সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে আপিল করা হবে কি না, সে ব্যাপারে গতকাল বুধবার সিদ্ধান্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন স্টেইনের আইনজীবীরা।

তবে ভোট পুনর্গণনার দাবি ওঠার শুরু থেকেই এর কড়া সমালোচনা করেছে ট্রাম্পের প্রচার কমিটি। তারা অভিযোগ করেছে, এ দাবির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা সবাই ‘ক্রন্দনরত শিশু এবং পরাজিত’। পরে টুইটারে একের পর এক সমালোচনা ও অভিযোগ করতে থাকেন ট্রাম্প।

 

(টুডে সংবাদ/তমাল)

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে www.todaysangbad.comভিজিট করুন, লাইক দিন এবং  শেয়ার করুন