উপজেলা পর্যায়ে জানুয়ারি মাসে মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই শুরু হবে : আ ক ম মোজাম্মেল হক

57

টুডে সংবাদ ডেস্ক : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি বলেছেন, আগামী জানুয়ারি মাসে প্রতি শনিবার উপজেলা পর্যায়ে সকল মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই কার্যক্রম শুরু হবে। নতুন প্রজন্মের কাছে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছড়িয়ে দিতে পহেলা ডিসেম্বরকে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হবে বলে তিনি জানান।
আজ জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।
পহেলা ডিসেম্বরকে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা দিবস হিসেবে পালন করা উপলক্ষে আয়োজিত এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চের চেয়ারম্যান ও নৌ পরিবহন মন্ত্রী মো. শাজাহান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. কামরুল ইসলাম, মেজর (অব:) ওয়াকার হাসান, ইসমত কাদির গামা, কবির আহমদ খান, নজরুল ইসলাম বাচ্চু , সাংবাদিক সাজ্জাদ হোসেন প্রমুখ।
আ ক ম মোজাম্মেল হক আরো বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি সুখি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনেই হোক আমাদের আজকের দিনের অঙ্গিকার। তিনি বিজয়ের মাসের প্রথম দিনে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়কালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ভারতের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর অবদানের কথা শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো.কামরুল ইসলাম বলেন, জিয়াউর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর একাত্তরের পরাজিত শক্তিকে পুনর্বসান করেছে। এছাড়া জিয়াউর রহমান নানাভাবে পাকিস্তানের পক্ষে কাজ করায় তার বীরউত্তম খেতাব প্রত্যরের জন্য তিনি মন্ত্রণালয়ের কাছে দাবি করেন।
তিনি বলেন, আজও একাত্তরের পরাজিত শক্তি পঁচাত্তরের মত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার নানা ষড়যন্ত্র করছে। মুক্তিযোদ্ধদের আজ ঐক্যবদ্ধ হয়ে পরাজিত শক্তিকে নির্মূল করতে হবে।
সভাপতির বক্তব্যে নৌ পরিবহন মন্ত্রী মো. শাজাহান খান বলেন, জিয়াউর রহমান এবং বেগম জিয়া মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী শক্তিকে লালন-পালন করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নানাভাবে প্রশ্নের সম্মুখীন করেছেন। তিনি বলেন, জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ঐক্যের প্রতীক হিসেবে ধারণ করে একাত্তরের পরাজিত শক্তিকে নির্মূল করতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চ কাজ করে যাচ্ছে। দেশের সকল মুক্তিযোদ্ধা একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে সামনের দিকে এগিয়ে যাবে মন্তব্য করে বলেন, এদেশ থেকে হত্যার রাজনীতি চিরতরে নির্মূল করাই হোক আমাদের আজকের দিনের প্রত্যয়।
এদিকে, পহেলা ডিসেম্বরকে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা দিবস হিসেবে ঘোষণা করার দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্দন কর্মসূচিতেও মন্ত্রী অংশগ্রহণ করেন।

(টুডে সংবাদ/মেহেদী)

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে www.todaysangbad.com