ঘরের কোন জিনিস কত দিন পর পর বদলানো উচিত

balis

নিউজ ডেস্ক : বাড়ির বাজার তো রোজই হয়। জামাকাপড়ও প্রায় প্রতি মাসেই কিনি আমরা। কিন্তু ঘরের এমন অনেক জিনিস রয়েছে যা আমরা বছরের পর বছর কেটে গেলেও পুরনোটাই ব্যবহার করতে থাকি। কিন্তু সব কিছু ব্যবহারেরই একটা মেয়াদ থাকে। জেনে নিন কোন জিনিস কত দিন পর পর বদলানো উচিত।

বালিশ: বছরের পর বছর একই বালিশ ব্যবহার করবেন না। প্রতি ২-৩ বছরে বদল করুন।

স্লিপার: বাড়িতে পরার স্লিপার প্রতি ৬ মাস অন্তর পাল্টে ফেলুন।

স্পঞ্জ ও শাওয়ার পাফ: স্পঞ্জ প্রতি দু’সপ্তাহ অন্তর বদল করুন। শাওয়ার পাফ বদল করুন প্রতি ৬ মাস অন্তর।

তোয়ালে: প্রতি দিন তোয়ালে কাচুন। এক থেকে তিন বছর অন্তর তোয়ালে বদল করুন।

টুথব্রাশ: প্রতি তিন মাস অন্তর টুথব্রাশ বদল করুন।

হেয়ার ব্রাশ: চিরুনি বা হেয়ার ব্রাশ প্রতি সপ্তাহে পরিষ্কার করুন। ৭ থেকে ১০ মাসের অন্তও হেয়ার ব্রাশ বদল করুন। এক বছরের বেশি ব্যবহার করবেন না।

পারফিউম: যদি পারফিউমের বোতল খুলে ফেলেন তাহলে দু’বছর পর্যন্ত ঠিক থাকে। না খুললে তিন বছর পর্যন্ত রাখতে পারেন। ১-৩ বছরের মধ্যে পারফিউম বদল করাই ভাল।

পেসিফায়ার: শিশুদের ল্যাটেক্স পেসিফায়ার অবশ্যই ২-৫ সপ্তাহের বেশি ব্যবহার করবেন না।

বাচ্চাদের সিট: সময়ের সঙ্গে সঙ্গে প্লাস্টিক ও ফোম খারাপ হতে থাকে। ৬-১০ বছরের বেশি ব্যবহার করবেন না। যদি মনে করেন বড় ছেলের ব্যবহৃত সিটেই ছোট ছেলেকে বসাবেন তাহলে সেই পরিকল্পনা বাদ দিন।

ব্রা: যতই পছন্দের হোক না কেন যখনই মনে হবে শেপ নষ্ট হয়ে গেছে, লুজ হয়ে গেছে তাহলে অবশ্যই ব্রা বদল করুন। এক-দু’বছরের বেশি ব্রা পরবেন না।

রানিং শু: যদি আপনি ম্যারাথনে না দৌড়ন বা প্রতি দিন জিমে নাও যান, তাহলেও ২৫০-৩০০ মাইল চলার পরই রানিং শু-র কুশনিং ক্ষয় হতে থাকে।

রান্নার মশলাপাতি: বেশি দিন থাকলে মশলাপাতির স্বাদ ও গন্ধ নষ্ট হয়ে যায়। বিশেষ করে গুঁড়ো মশলা ৬ মাসের বেশি রাখবেন না।

ময়দা: ভাল করে এয়ার টাইট কৌটোয় রাখলে ময়দা ৬ মাস পর্যন্ত ভাল থাকে। খুব ভাল মানের ময়দা হলে এক বছরও ভাল থাকে।

ফায়ার এক্সটিঙ্গুইশার: যদি ফায়ার এক্সটিঙ্গুইশারে কোনও সমস্যা, লিক দেখেন তাহলে অবিলম্বে বদল করুন। কোনও সমস্যা না থাকলেও ১৫ বছরের বেশি ঘরে রাখবেন না।

পাওয়ার স্ট্রিপ: ঘরে পাওয়ার স্ট্রিপ থাকলেএক সঙ্গে টোস্টার, ইলেকট্রিক কেটল, আইপড, ট্যাবলেট, ল্যাপটপ সব চার্জ করা যায়। কিন্তু পাওয়ার স্ট্রিপেরও কিছু সীমাবদ্ধতা থাকে। বেশি দিন হয়ে গেলে সমস্যা দেখা দিতে পারে। এক-দু’বছর অন্তর পাওয়ার স্ট্রিপ বদল করুন।

ডিসইনফেকট্যান্ট: কয়েক মাস পর ডিসইনফেকট্যান্টের কার্যকারিতা কমে যায়। তিন মাসের বেশি ডিসইনফেকট্যান্ট ব্যবহার করবেন না।

মসকিউটো রিপেলেন্ট: সব সময় কাজে লাগে না। মরসমু বদলের সময় মশা বাড়লে বা জঙ্গলে বেড়াতে গেলে মসকিউটো রিপেলেন্টের প্রয়োজন পড়ে। তা বলে বাড়িতে বছরের পর বছর ফেলে রাখবেন না। দু’বছরের বেশি ঘরে মসকিউটো রিপেলেন্ট রাখবেন না। (টুডেসংবাদ/এআরএ)