প্রথম সন্তানের মুখ দেখা আর হল না…

tiago-da-rocha-vieira-alves

স্পোর্টস ডেস্ক : মাত্র এক সপ্তাহ আগের ঘটনা। বাবা হবেন, এই খবরটা পেয়েছিলেন ব্রাজ়িলের ফুটবলার টিয়াগো আলভেস। কিন্তু, মঙ্গলবার বিমান দুর্ঘটনা মুহূর্তের মধ্যেই যেন সব স্বপ্ন কেড়ে নিল।

সন্তান হয়তো জন্মাবে, কিন্তু তার মুখটা দেখতে পেলেন না আলভেস। ভাগ্যের এটাই বোধহয় ছিল সবথেকে বড় পরিহাস। বুধবার সকালে সোশাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে।

সেই ভিডিও’য় দেখা গেছে, ভাবী সন্তানের আনন্দে দলের সতীর্থ ফুটবলারদের সঙ্গে উচ্ছ্বাসে মেতে উঠেছেন। কখনও তাদের জড়িয়ে ধরছেন, কখনও আবার হৈ চৈ করছেন। কখনও আবার সন্তানকে কীভাবে কোলে নেবেন, সেটাও প্র্যাকটিস করছেন।

বিমানের ৭৫ জন মৃত যাত্রীদের তালিকায় একজন হলেন আলভেস। তিনিও বলিভিয়া থেকে দলের সঙ্গে কোপা সুদামেরিকান ফাইনাল খেলার জন্য যোগ দিয়েছিলেন। তারপর কী হয়েছে, সেটা তো আপনারা সকলেই জেনে গেছেন। দলের স্ট্রাইকার পজিশনে খেলতেন আলভেস ওরফে টিয়াগুনহো।

গত সপ্তাহে সাও পাওলের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে তিনি দলের হয়ে দ্বিতীয় গোলটি করেছিলেন। তার গোলে ভর করেই দল ফাইনালে উঠেছিল।

আলভেসের ভাই গিলমারা মেরিনস বললেন, “ওর স্ত্রী’র সন্তানসম্ভবা হওয়ার ঘটনাটি একেবারেই অভাবনীয়। গত একমাস ধরে গ্রাজ়িয়েল (আলভেসের স্ত্রী) সন্তানধারণ করলেও, মাত্র এক সপ্তাহ আগেই সেই খবরটা পেয়েছিলেন। ও সবসময়ই চাইত যে কম বয়সে বাবা হবে। আমি এটা ভেবে ভালো লাগছে যে মৃত্যুর আগে কিছুদিনের জন্য হলেও, ও এই সুখের অনুভূতিটা পেয়ে গেছে।

প্রসঙ্গত, গতবছর ১৫ ডিসেম্বর বিয়ে করেছিলেন আলভেস। মেরিনস আরও জানিয়েছেন যে আলভেস খুবই যতœবান ছিলেন। তিনি বললেন, “আলভেসের মা এখনও বিমান দূর্ঘটনার কথা বিশ্বাস করতে পারছেন না। তিনি এখনও ছেলের জন্য অপেক্ষা করে বসে আছেন। তবে আলভেসের মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়েছে। আমরা এখন শুধুমাত্র ওর দেহ ফেরার অপেক্ষায় রয়েছি। এখন শুধু আমরা এটুকুই করতে পারি।”