বরিশালের জিসানের প্রাইভেট কার ১ লিটারে চলবে ১৪৫ কিলোমিটার

01

মুলাদী (বরিশাল) প্রতিনিধিঃ বরিশাল টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে অটোমোবাইল বিষয়ে এইচএসসি কোর্স সম্পন্ন করা জিসান জ্বালানি সাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব মোটরযান উদ্ভাবন করে দেশজুড়ে খ্যাতি অর্জন করেছেন। জিসান হাওলাদারের উদ্ভাবিত জ্বালানি সাশ্রয়ী দুটি মোটরযান বেশ কিছুদিন আগে জাতীয় কার্ড ডিজাইন অ্যান্ড ফুয়েল এফিসিয়েন্ট কম্পিটিশনে দুটি ক্যাটাগরিতে প্রথম স্থান অধিকার করেছে। জাপানের সাহায্য সংস্থা জাইকার উদ্যোগে নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে আয়োজিত মেলায় বুয়েট, রুয়েট, এমআইএসটি, আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়সহ প্রথম সারির কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তরুণ শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবিত মোটরযান এ মেলায় প্রদর্শন করা হয়। মেলায় তার উদ্ভাবিত পরিবেশবান্ধব ও জ্বালানি সাশ্রয়ী প্রথম মোটরযান এক লিটার পেট্রলে ১৪৫ কিলোমিটার এবং দ্বিতীয়টি ১৪০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে। প্রতিযোগিতার চার ক্যাটাগরিতে জিসানের উদ্ভাবিত চার চাকার মোটরযানটি সর্বোপরি চ্যাম্পিয়ন হয়। তিন চাকার অপর যানটি সবচেয়ে কম জ্বালানি ব্যবহার করে বেশি পথ অতিক্রম করায় সেটিও প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়। মেলায় তৃতীয় হয়েছে রাজশাহী প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়েররুয়েট-১ দলনেতা তরুণ উদ্ভাবক চন্দনের তৈরি চার চাকার মোটরযান। ওই মোটরযান এক লিটার পেট্রলে ৯৬ কিলোমিটার অতিক্রম করে। ৮৬ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে একই বিশ্ববিদ্যালয়ের দল এম. জিনিয়াস দলনেতা সাব্বির আহমেদের উদ্ভাবিত তিন চাকার মোটরযান প্রতিযোগিতায় চতুর্থ স্থান অধিকার করে। বুয়েট ও এমআইএসটির শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবিত মোটরযান প্রতিযোগিতা শুরুর সঙ্গে সঙ্গে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বাদ পড়ে যায়।বাংলাদেশ মডেল ইয়ুথ পার্লামেন্টের চেয়ারম্যানফিরোজ মোস্তফা জানান, জাতীয় বিজ্ঞান মেলায় প্রথম ও দ্বিতীয় স্থান অধিকার করা জিসানের মোটরযান দুটি ঢাকায় জাইকা আয়োজিত মেলায় অংশ নেবে। জিসানকে ক্রেস্ট ও সনদ দেওয়া ছাড়াও মোটরযানের কারিগরি উন্নতির গবেষণার জন্য সব অর্থ জাইকা সহায়তা দেবে বলে তিনি জানান। বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার বাসিন্দা মো. আবুল হোসেন হাওলাদারের ছেলে জিসান হাওলাদার ২০১১ সালে প্রাইভেট কার আকৃতির মোটরযান উদ্ভাবন করেন। মোটরসাইকেলের ইঞ্জিনচালিত ১২০ সিসি মোটরযানের চেসিস তৈরি করা হয়েছে এসএস পাইপ দিয়ে।