মুখের ক্যান্সারের ক্ষত সারাবে মধু

iit_kgp

নিউজ ডেস্ক : মুখের ক্যান্সারের ক্ষত সারানোর চাবিকাঠি লুকিয়ে রয়েছে মধুর মধ্যে। কয়েক বছরের গবেষণার পর একদল ভারতীয় বিজ্ঞানী একটি ফর্মুলা খুঁজে বের করেছেন।

খড়্গপুর আইআইটির বিভিন্ন শাখার গবেষকদের নিয়ে গড়ে ওঠা ওই গবেষণাকারী দল সিল্ক ও মধু মেশানো একটা থেরাপিউটিক প্যাচ তৈরি করেছেন। এই গবেষক দলে ছিলেন কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার, বায়ো টেকনোলজিস্ট এবং চিকিৎসকরা।

আইআইটি’র স্কুল অব মেডিসিন সায়েন্সেস ও টেকনলজি গবেষণাগারে এ ব্যাপারে পরীক্ষা চালানো হয়। পরীক্ষার ফলাফলে দেখা গিয়েছে যে ওই প্যাচ শুধু অস্ত্রোপচারের পর ক্যান্সারের ক্ষতই সারিয়ে ফেলে না, একইসঙ্গে মুখের ক্যান্সার পুনরায় হওয়ার আশঙ্কাও প্রতিরোধ করে।

গবেষক মনিকা রাজপুত বলেছেন, ক্ষত নিরাময় এবং ক্যান্সার ও ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধক গুণ থাকার জন্য পরিচিত মধু। বায়োমেট্রিক প্রযুক্তিতে মধু দিয়ে ওই থেরাপিউটিক প্যাচ তৈরি হয়েছে। এক্ষেত্রে সফট ন্যানো টেকনলজি সংক্রান্ত ধারণার উদ্ভাবক আইআইটি খড়্গপুরের অধ্যাপক ঋতব্রত মুখোপাধ্যায়। অন্যদিকে মধুর ব্যবহারের পরিকল্পনা করেন জ্যোতির্ময় চট্টোপাধ্যায়।

সহ গবেষক নন্দিনী ভান্দারু বলেছেন, মুখের ক্যান্সারের অনেক রোগীই অস্ত্রোপচারের পথ বেছে নেন। শরীরের আক্রান্ত অংশটি সরানোর পর যে ক্ষত তৈরি হয়, তাতে ক্যান্সারাস বা প্রি-ক্যান্সারাস কোষ থেকে যেতে পারে। ফলে ফের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েই যায়। তাদের প্রযুক্তি রোগীদের এ ধরনের ক্ষত নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করবে।

বর্তমানে মুখের ক্যান্সারের ক্ষত সারানো ও রোগ ফের হওয়ার সম্ভাবনা কম করার কোনও থেরাপিউটিক প্যাচ বাজারে পাওয়া যায় না।

আইআইটির গবেষক দল তাদের আবিষ্কারের জন্য ইতিমধ্যেই পেটেন্টের আর্জি জানিয়েছেন। তাদের এই গবেষণা সংক্রান্ত রিপোর্ট আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটির ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল এসিএস বায়োমেট্রিক্যাল সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং-এ প্রকাশিত হয়েছে।

এই প্রযুক্তির বাণিজ্যিকীকরণের আগে বিজ্ঞানীরা প্রথমে পশু এবং পরে মানুষের ওপর প্রয়োগ করে দেখবেন। (টুডেসংবাদ/এআরএ)