চিটাগংকে জেতালেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল

9b0fb7a90e5073588ed235b5a09af6ab-tamim

স্পোর্টস ডেস্ক : তামিম ইকবাল ভীষণ হতাশ হয়ে পড়েছিলেন। ৬৪ রানে ৪ উইকেট হারানোর পর তীব্র চাপে মাথা ঠান্ডা রেখে যখন লড়ছিলেন চিটাগং অধিনায়ক, তখনই যে আউট সঙ্গী জহুরুল ইসলাম। তবে শেষ পর্যন্ত তামিমকে হতাশ হতে হয়নি। অধিনায়কের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে আজ চিটাগং ভাইকিংস খুলনা টাইটানসের ১৩১ রান টপকে গেছে ৫ উইকেট ও ৮ বল হাতে রেখেই।

বদলে যাওয়া তামিমকে নিয়ে দুদিন আগেই বলেছিলেন চিটাগং কোচ সালাউদ্দিন। বাঁহাতি ওপেনার যে এখন আরও পরিণত, ব্যাটিং করেন দায়িত্ব নিয়ে; সেটির আরেকটি নিপুণ প্রদর্শনী দেখা গেছে আজও। ৩৯ থেকে ৬৪—এই ২৫ রানের মধ্যে আউট চিটাগংয়ের চার ব্যাটসম্যান। এর মধ্যে আছেন ক্রিস গেইলও। চিটাগংয়ের দরকার ৫৭ বলে ৬৮ রান। চাপটা এতটাই জেঁকে বসে দশম ওভারে পঞ্চম বল থেকে ১৪তম ওভারের চতুর্থ বল পর্যন্ত টানা ২৪ বলে কোনো বাউন্ডারি পায়নি চিটাগং। অথচ ব্যাটিংয়ে তখনো তামিম ছিলেন। এক-দুই করে স্ট্রাইক বদল করে পরে অবশ্য পরিস্থিতি বুঝে স্ট্রোক খেলেছেন। পুল, কাট, ড্রাইভ, ডাউন দ্য উইকেটে এসে একেকটি বাউন্ডারিতে সাজানো তাঁর ৫৯ বলে অপরাজিত ৬৬ রানের ইনিংসটি। এবারের বিপিএলে এটি তামিমের চতুর্থ ফিফটি।
অবশ্য তামিমের এই দুর্দান্ত ব্যাটিং দেখে আফসোস হতে পারে শুভাগত হোমের। ষষ্ঠ ওভারে শফিউল ইসলামের বলে ক্যাচ তোলেন তামিম। কে ধরবে—এমন দ্বিধায় শেষ পর্যন্ত ক্যাচটা নিতে পারেননি শুভাগত। তামিমের রান তখন ২৪। গেইল আগেই ফিরেছেন, চিটাগং অধিনায়ককেও দ্রুত ফেরাতে পারলে ম্যাচের গল্পটা অন্য রকম হতে পারত।
এর আগে খুলনার ১৩১ রানের ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪২ রান অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর। তাঁর ৩৯ বলের ইনিংসে চার ৪টি, ছক্কা ১টি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
খুলনা টাইটানস: ২০ ওভারে ১৩১/৮ (ওয়েসেলস ২০, তাইবুর ১, অলক ৩, শুভাগত ২, মাহমুদউল্লাহ ৪২, আরিফুল ১৮, পুরান ১৮, কুপার ১৫, মোশাররফ ১*, জুনায়েদ ০*; নবী ১/২৬, শুভাশিস ১/৩২, সাকলাইন ১/২৩, ইমরান ২/১৬, তাসকিন ২/২৮)।
চিটাগং ভাইকিংস: ১৮.৪ ওভারে ১৩৫/৫ (তামিম ৬৬*, গেইল ১৯, এনামুল ৩, মালিক ১, জাকির ৩, জহুরুল ২২, নবী ১৭*; মাহমুদউল্লাহ ০/২৪, জুনায়েদ ০/৩১, শুভাগত ১/৭, শফিউল ০/২৯, কুপার ১/১৮, মোশাররফ ১/২৫)।
ফল: চিটাগং ভাইকিংস ৫ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ: তামিম ইকবাল।

(টুডে সংবাদ/তমাল)

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে www.todaysangbad.com ভিজিট করুন, লাইক দিন এবং  শেয়ার করুন