জাবি ছাত্রলীগের নতুন কমিটির দৌড়ে এগিয়ে বিতর্কিত ও অছাত্ররা

01

আরিফুল ইসলাম আরিফ, জাবি প্রতিনিধি: দীর্ঘ চার বছর পর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি হবে এই ঘোষণায় প্রাণচাঞ্চল্য ফিরেছে নেতাকর্মীদের মধ্যে। অনেকেই কমিটিতে পদ পেতে লবিং শুরু করেছে। তবে যারা এই দৌড়ে এগিয়ে আছেন তাদের মধ্যে অছাত্র ও বিতর্কিতদের সংখ্যাই বেশি।
কমিটিতে প্রার্থীতার দৌড়ে যারা এগিয়ে আছেন তারা হলেন শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আরিফুল ইসলাম আরিফ (৩৮তম আবর্তন), যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মিঠুন কুমার কুন্ডু (৩৮ তম আবর্তন),  সাংগঠনিক সম্পাদক মোর্শেদুর রহমান আকন্দ (৩৮ তম আবর্তন), সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক মিনহাজুল আবেদীন (৩৯ তম আবর্তন), আইন বিষয়ক সম্পাদক আবু সুফিয়ান চঞ্চল(৩৯ তম আবর্তন), উপ-অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মো. জুয়েল রানা (৩৯ তম আবর্তন),  সহ-সম্পাদক তানভীর হাসান খান (৩৯ তম আবর্তন), এবং আ ফ ম কামালউদ্দিন হল সাধারণ সম্পাদক এনামুল হাসান ভূঁইয়া নোলক(৩৯ তম আবর্তন)। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে এদের অধিকাংশেরই ছাত্রত্ব শেষ হয়ে গেছে।
সহ-সভাপতি আরিফুল ইসলাম আরিফের বিরুদ্ধে নিজ দলের নেতাকর্মীদের হলের ছাদ থেকে ফেলে দেয়া, শহীদ মিনার অবমাননা, হলের ক্যান্টিনে ফাও খাওয়ার অভিযোগ রয়েছে।
মিঠুন কুমার কুন্ডুর বিরুদ্ধে সাংস্কৃতিক জোটের নেতাকর্মীদের মারধর, রিকশাচালককে জুতা পেটাসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।
মোর্শেদুর রহমান আকন্দের বিরুদ্ধে আবাসিক হল থেকে অস্ত্রসহ পুলিশের হাতে গ্রেফতার, প্রতিপক্ষের নেতা-কর্মীদের মারধর এবং মিছিলে না যাওয়ায় হলের সাধারণ শিক্ষার্থীদের রুমে তালা লাগিয়ে দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে।
আইন বিষয়ক সম্পাদক আবু সুফিয়ান চঞ্চলের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের রাজনীতি ছেড়ে দেওয়া, গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের সময় ক্যাম্পাসে ছাত্রদলের রাজনীতির ভয়ে ঢাকা গিয়ে উত্তরবঙ্গের ও তৎকালীন ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক শামসুল করিব রাহাতের সাথে যোগাযোগ করে লিয়াজো করা, মাদক ব্যবসায়ীকে হলে অবৈধভাবে জায়গা দেওয়া, সাধারণ শিক্ষার্থীদের মারধর, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ রয়েছে। তাছাড়া ক্যাম্পাসের এক মাদক ব্যবসায়ীর সাথেও তার যোগাযোগ আছে বলে অভিযোগ আছে।
সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক মিনহাজুল আবেদীন, উপ-অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মো. জুয়েল রানা, সহ-সম্পাদক তানভীর হাসান খানের বিরুদ্ধে গাছের টেন্ডারবাজি নিয়ে অপর এক ছাত্রলীগ (বহিষ্কৃত) নেতাকে মারধর ও সংঘর্ষের অভিযোগ রয়েছে।
এ বিষয়ে জাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুর রহমান জনি  বলেন, বিতর্কিত ও অছাত্রদের কোন স্থান দেওয়া হবে না। আমরা আশা করছি মেধাবী ও নিয়মিত ছাত্রদেরকে নিয়ে নতুন কমিটি গঠিত হবে।
কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন এ বিষয়ে জানিয়েছেন, ঐতিহ্যবাহী এই সংগঠনে কোন বিতর্কিত ছাত্রকে স্থান দেয়া হবেনা। আমরা আমাদের সাধ্যমত সবধরনের চেষ্টা করবো কোন বিতর্কিত লোক যাতে কমিটিতে আসতে না পারে। আমরা সার্চ কমিটি গঠন করেছি। তারা দেখছেন কার বিরুদ্ধে কি অভিযোগ আছে। অভিযুক্ত ও মামলার আসামি কেউ এই সংগঠনের ইমেজ নষ্ট করুক এটা আমরা চাই না। আমাদের নেত্রীর নির্দেশ কেবল বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সঠিক অনুসারীরাই নতুন কমিটিতে স্থান পাবে।
উল্লেখ্য, আগামী ১ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) কাউন্সিলের মাধ্যমে সদস্যদের ভোটে নেতা নির্বাচন করা হবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটি। ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মাহমুদুর রহমান জনিকে সভাপতি ও রাজিব আহমেদ রাসেলকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৫ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হয়। পরে তারা ১৬১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন।