প্রেম,ভালোবাসা, বিয়ে

1-131
প্রেম,ভালোবাসা, বিয়ে
মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বাবু :
ভালোবাসি বলেছি বহুবার যারে ,সেশুধু কষ্ট দেয় মোরে।
ভালোবাসি ভালোবাসি ভালোবাসি ,বিবাহের  পূর্বে যতো ,
মন ভূলানো কথা বলে দুজনে ,বুঝে ঠেলা ,খরচের ফর্দ হাতে এলে।
সংসার হয় বড় যতো মোহাব্বত ভালোবাসা ঘৃনায় বড়ো হয় তত ,(সবার তরে নাও হতে পারে । )
কেউ ভালোবাসে অর্থ বিত্ত গাড়ি বাড়ি ,কেউ ভালোবাসে বুকের জমিন
সুখ দুঃখ আনন্দ বেদনা সব ,হাতে হাত রেখে মরতেও পারে।
বাস্তবে নারী ,সঙ্গিনীর ভালোবাসা  শুধু মোহ ,প্রয়োজন ,
যে আকর্ষণ ভালোবাসা হয়ে কবিতা,কাব্য নাটকে উপচে পড়ে।
কেউ সুখী আলু ভর্তা ভাতে ,গাছতলার রাতে ,বকুল ফুলের মালাতে (সম্পূর্ণ মিথ্যা)
কেউ অসুখী অট্টালিকা ,উঁচু তলাতে ,শতভাগ ভালোবাসা নাই দুনিয়াতে ,
না পাবে আখেরাতে,পাপের বোঝা ভারী ভালোবাসার মাশুলে
প্রেম করে সমবয়সী বা দু চার বছরের তফাতে,বিয়ে হয় আদু ভাই ,দাদু ভাইয়ের সাথে !
মৃত্যুর আগে ,ভালোবাসা থাকা কালে “তোমায় ছাড়া বাঁচিবা না আমি “
চল্লিশা পার হবার আগেই লিঙ্গভেদে  নতুন স্ত্রী,নতুন স্বামী !
আহারে ভালোবাসা ,অর্থ- বিত্ত যার আছে হয়তো তার কাছেই খাসা!
অর্থ বিত্তহীনের কাছে ভালোবাসার সবটাই ফাঁকা।
সাদি মোবারকের আগে সব কিছু ,জান , জানু ,নতজানু
তুমি আমার একমাত্র ভালোবাসা ,যদি চাও এনে দেব আকাশের চাঁদ  তারা ,
যদি বলো তারার মালা পরাবো ,  দূর পাহাড়ের চূড়ায় করে দেব প্রেমের  তাজমহল  ,
বিয়ের পর,নির্যাতন ,যৌতুকের জন্য ফাঁসি !নিত্য ঝগড়া ঝাঁটি ,
উভয়ের স্বীকারোক্তি   ভুল ,ছিলো ,প্রতারণা ছিলো, ছিলো পাগলামি।
প্রেমের সময়, অবৈধ কালে, ধরণী ,প্রকৃতি নারী সুন্দর ,মায়াময়,প্রেমময়
সাদির পরে নারী হলে নষ্টা ,পুরুষ হলে শালা বাইঞ্চোৎ উপাধি পায় ।
নিজের স্ত্রী ঢাকিয়া রাখিয়া পরস্ত্রীতে ফিদা ,পর পুরুষ স্মার্ট, সুদর্শন ,নিজের স্বামী গাধা !
প্রেম আসে স্বর্গ থেকে ,স্বর্গে চলে যায়,ফাঁদে ফেলে প্রেম প্রতারণা চলে কাব্য কবিতায় ।
বিয়ে ছাড়া ডেটিং হলে দেরী কানে ধরে  মাফ চায় ,
বিয়ের পরে একে অন্যকে অসহ্য ,অবিশ্বাসে কাটে এক বিছানায়।
সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করিলে ,সময়ের কাজ  যদি না হয় সময়ে , সারা জীবন জ্বলে
চাকুরী,বাকরী ,ব্যাবসা -বাণিজ্য দেখিয়া শুনিয়া প্রেম বিয়ে যদি  করে
সে বিয়েতে লোক দেখানো হলেও ,শান্তি মিলিতে পারে।
বিয়ের পূর্বে প্রেমের কালে কত গান বাঁধে , রেখে হাঁটে দূর বহুদূর
বিয়ের পরে ঘরকা মুরগী ডাল বরাবর দুজনেই কপাল চাপড়ায় !
বাবর আলী বলে, অভিজ্ঞতা হলো অনেক, একটা কথা বলি ভাই -বোন পুত্র কন্যা সম সকলেরে ,
সঙ্গী যে হবে তার  ঘর -বাড়ি , জমি-জমা ছাড়া বিবাহ করিও না ওরে।
বিবাহ যখন করিতেই হইবে রিপু করো কন্ট্রোল ,উল্টা পাল্টা প্রেম করিয়া
ছেকা খাইয়া করিওনা জীবনে গন্ডগোল।
বিবাহ ব্যাতিরেকে একবার যদি ছোঁয়া লাগে নেগেটিভ পজেটিভে
জীবনে আসিবে নরক যন্ত্রনা ,শোধরাইতে পারিবে না মৃত্যুতে শেষ হবে তবে।
যতই বলি করিও না বিয়া , এ যে বড়ই বিষাদময় ,উগ্র হইয়া মুখ ভেঙচাইয়া বাবর আলীরে কয় ,
“শালা: নিজে বিয়া কইরা আমাগোরে উপদেশ”দেয়!
করো ,বুঝ ঠেলা ,বাবর আলীর কি? বিয়ের পরে লাভ হবে না,শুধু শুধু স্মরণ করবি।
থেমে থাকে না প্রেম ভালোবাসা চলছে ,চলবে দুর্বার গতিতে ;
আকর্ষণ বিপরীত লিঙ্গের বিধাতার আজব সৃষ্টি ,ভালোবাসি ,ভালোবাসি মুখে ফেনা
জীবন হয় ছারখার চুকাতে ভালোবাসার দেনা।
একমিনিটের এক রত্তির সুখের নির্যাসে কতজন হারায় সম্ভ্রম ,ভালবাসা আজব এক মতিভ্রম,
কেউ বুঝে কে বুঝে না ,কেউ করে যায় প্রেম,কেউ পরকীয়া।
ফিরে আসি শুরুতে ,
ভালোবাসি বলেছি বহুবার যারে ,সেশুধু কষ্ট দেয় মোরে।
ভালোবাসি ভালোবাসি ভালোবাসি ,বিয়ের  পূর্বে যতো ,
মন ভূলানো কথা বলে দুজনে ,বুঝে ঠেলা , খরচের ফর্দ হাতে এলে।