দু’জনকে একসাথে ভালবাসা কি অপরাধ?

love2

নিউজ ডেস্ক: সম্পর্কের তল পাওয়া ভার। নিখাদ-নিপাট সম্পর্কের ভিতরও কখনও কখনও ঘনিয়ে ওঠে অন্ধকার। মন চলে যায় অন্য কোনও দিকে। সেখানেই মেলে আর এক আলোর সন্ধান।

কখনও আবার বিনা অন্ধকারেই এক সম্পর্ক থেকে মন ডানা মেলে অন্য সম্পর্কের দিকে। আর ঠিক এখান থেকেই শুরু অপরাধবোধের। একজনের সঙ্গে সম্পর্ক থাকা সত্ত্বেও আর একজনকে ভালবাসার ভিতর অন্যায় দেখেন অনেকে। দ্বন্দ্বে পড়ে যন্ত্রণাদীর্ণ হন। অথচ এর থেকে পরিত্রাণ পান না।

আসলে সম্পর্ক শব্দটিকে কোনও একছাঁচে ফেলা যায় না। আর তাই এক সম্পর্কের ভিতরে থেকেও অন্য সম্পর্কের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়ার প্রবণতা দেখা যায়। মনোবিদদের মতও তাই।

এ অসম্ভব কিছু নয়। কেননা ভালবাসাকে আমরা অনেক সময়ই কোনও এক ফ্লেভারের বলে ধরে নিয়। কিন্তু আদতে ভালবাসার স্বরূপ বেশ আলাদা ও জটিলও। কোনও স্থির সম্পর্কে থাকতে থাকতেই, অন্য কারও কোনও গুণ ভাল লেগে যাতে পারে। সেই অনুভূতির শরিক হতে গিয়েই সেই মানুষটির সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ার প্রবণতা দেখা যায়।

কখন এই প্রবণতা দেখা দেয়?

মনোবিদদের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, যখন কেউ নিজেকে বেশি ভালবাসতে শুরু করেন তখনই এই প্রবণতা মাথাচাড়া দেয়। ধরা যাক, চাকরিক্ষেত্রে বা শারীরিকভাবে কেউ খুব সন্তোষজনক একটি জায়গায় রয়েছেন। জীবনের এই স্বস্তিই তার অন্য অন্য আবেগগুলোকে উসকে দেয়। নিজেকেই আরও বেশি করে ভালবাসতে চান। আর তাই নিজের বিভিন্ন অনুভূতির মর্যাদা বা নানা আবেগের সহমর্মী মানুষ যাদের পান, তাদের সঙ্গেই একটি আত্মিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়তে চান। চেনা সম্পর্কের বাঁধা গতে তা গর্হিত বলে মনে হতে পারে। কিন্তু মানুষের মনের গতিবিধি এতই জটিল ও বহুমুখী পথে যে, এ ঘটনা প্রায়শই ঘটে।

এটা কি অন্যায়?

এ নিয়ে নানামত সমাজে। বিশেষত নির্দিষ্ট সামাজিক কাঠামোর ভিতরে ভালবাসার এই পরিসর অনেকেই মেনে নেন না। শারীরিক বা মানসিক বহুগামিতাকে তাই স্বীকৃতি দেওয়া হয় না। যুক্তিগতভাবে একইসঙ্গে দু’জনকে ভালবাসা সম্ভব হলেও, মানসিক দিক থেকে তা বেশ কষ্টকর। বিশেষত উল্টোদিকের মানুষটির ক্ষেত্রে। কারও সঙ্গী অন্য একজনকে ভালবাসে, এটা মেনে নেওয়া অনেক ক্ষেত্রেই সম্ভব হয় না। সেখান থেকেই বিবাদের শুরু। মনোবিদরা বলছেন, এই পরিস্থিতিতে সবার আগে স্বচ্ছ হওয়া উচিত নিজের কাছে। তারপর সঙ্গীর কাছেও।

নিজেকে কী প্রশ্ন করবেন?

এই পরিস্থিতি নিজের জীবনে দেখা গেলে, আগে নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করে বাজিয়ে নেওয়া উচিত। প্রথমেই জেনে নেওয়া ভাল, আপনি নিজে ঠিক কী চান? যা চাইছেন সেটি আপনার বর্তমান সঙ্গীর থেকে পাচ্ছেন কি না? দ্বিতীয়ত, নিজেকে চেনা। অর্থাৎ নিজে এক সঙ্গীতে সন্তুষ্ট না, অন্য কারও দিকে যেতে ইচ্ছে করছে সে ব্যাপারে আগে পরিষ্কার হয়ে নেওয়া উচিত। তৃতীয়ত, প্রশ্ন করুন, দু’জনকে একসঙ্গে ভালবেসে কি আদৌ কি আপনি সুখী হতে পারছেন? না তা জীবনে আরও জটিলতা বাড়াচ্ছে? এইরকম কাউন্সিলিংয়ের মাধ্যমেই নিজেই নিজেকে চিনতে পারবেন। আর মনোবিদের দ্বারস্থ হওয়ার রাস্তা তো খোলা থাকলই।
দু’য়ের মধ্যে কীভাবে একজনকে বাছবেন?

একই সঙ্গে দু’জনকে ভালবাসেন। অথচ বেছে নিতে হবে একজনকেই। এই ধরনের পরিস্থিতিতে এরকমই সমীকরণের সামনে দাঁড়াতে হয় শেষপর্যন্ত। যদিও এ সমাধানের কোনও নির্দিষ্ট গাণিতিক সূত্র নেই। বরং নিজেকে প্রশ্ন করে দেখুন, যে যে আবেগ বা অনুভূতির জন্য অন্য অন্য মানুষের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছেন, তার মধ্যে, কোনটি আপনার জন্য বেশি জরুরি। কোনটি ছাড়া আপনি অপ্রাসঙ্গিক। সেটি ঠিক করতে পারলেই সঙ্গী বেছে নেওয়াও অসুবিধার হবে না। আপনার সংস্কৃতি অনুরাগকে কেউ তৃপ্ত করতে পারে, কিন্তু আপনার ঘোর অসুখের সময়ও তিনি পাশে এসে দাঁড়িবেন তো! আপনার শারীরিক সৌন্দর্যে কেউ বিবশ হতে পারেন, কিন্তু আপনার ৯০ বছর বয়সেও তিনি এতটাই মুগ্ধ থাকবেন তো! এইভাবেই ভাবতে ভাবতেই সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছে যেতে পারবেন।

কী করবেন না?

তবু সম্পর্কের বহুমাত্রিকতায় একই সঙ্গে দু’জনকে ভালবেসে ফেলাই যায়। কিন্তু মনোবিদরা এ ব্যাপারে কয়েকটি বিষয়ে সতর্ক করে দিচ্ছেন। তা হল, কোনওভাবেই এ কথা আপনার সঙ্গীর কাছে গোপন করবেন না। নিজের কাছেও স্বচ্ছ থাকুন, সম্পর্ককেও স্বচ্ছ রাখুন।

নিজেকে প্রশ্ন করতে করতে যে সিদ্ধান্তে পৌঁছাবেন সেখানেই স্থির থাকুন। বারবার মত পাল্টালে থাকলে সমস্যা আরও বাড়বে বই কমবে না। (টুডেসংবাদ/এআরএ)